জমি পরিমাপের একক সমূহ

জমির পরিমাপ pdf, জমি পরিমাপের সূত্র, জমির পরিমাপ করার নিয়ম, জমির পরিমাপ ক্যালকুলেটর, 1 কাঠা = কত শতক জমি, জমির পরিমাপ হিসাব, জমির পরিমাপ শতক জমির শতাংশ ইংরেজি, নকশা থেকে জমির পরিমাপ, জমির পরিমাপ হিসাব, জমির মাপ ক্যালকুলেটর, জমির পরিমাপ pdf, জমির পরিমাপ লিংক, জমির শতাংশ বের করার নিয়ম, ফিতা দিয়ে জমি মাপার নিয়ম,
বাংলাদেশের জমি-জমা পরিমাপ করার নিয়ম সম্পর্কে আজকের এই পোস্ট করা হয়েছে । বাংলাদেশের বিভিন্ন বিভাগের জমি পরিমাপের নিয়ম নিচে দেওয়া হলোঃ

বিভিন্ন বিভাগের এককের আঞ্চলিক নাম

সারা বাংলাদেশে জমি জমার বিভিন্ন আঞ্চলিক একক আছে। নিচের বিভিন্ন বিভাগের এককের নামগুলো প্রচলিত ।

আঞ্চলিক জমির একক

  • বিঘা
  • পাক্ষি
  • কানি
  • কেয়র বা কেয়ার

জমির একক বিঘা

বাংলাদেশের রংপুর, রাজশাহী, খুলনা ও ঢাকার কিছু অঞ্চলে এই বিঘার হিসাবে জমি মাপা হয়। তবে এলাকাভেদে এই বিঘায় জমির পরিমাণ ভিন্ন হয়। যেমনঃ-
  • ঠাকুরগাঁও এক বিঘা জমি সমান ৫০ শতক।
  • আবার দিনাজপুরের কোথাও ৫০ শতকে, কোথাও ৪৮ শতকে, কোথাও ৬০ শতকে বিঘা
  • রংপুরের ৬০ শতাংশ বিঘা।
  • বগুড়ায় ২৯ শতকে বিঘা।
  • সরকারি হিসাবে ৩৩ শতকে বিঘা।

জমির একক পাখি

ঢাকা ও ময়মনসিংহের গ্রামাঞ্চলে অনেক জায়গায় এই পাখির হিসাবে জমি মাপা হয়। এলাকাভেদে এক পাখি জায়গায় ২০ শতক থেকে ৪০ শতক হয়ে থাকে।

জমির একক কিয়ার বা কেয়র

বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চলে এই এককে জমি মাপা হয়। এই কেয়ার বা কিয়ার জমি এলাকাভেদে ভিন্ন হয়। এলাকাভেদে এক কেয়ার জমি ৩০ শতক থেকে ৩৩ শতক হয়ে থাকে।

জমির একক কানি

বাংলাদেশের চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, কুমিল্লা, ফেনী, লক্ষ্মীপুর ও বরিশালে এই কানির হিসাবে জমি মাপা হয়। এক কানি জমি এলাকাভেদে ভিন্ন ভিন্ন হয়। তবে কমন যে হিসাব সেটা হল—
  • ৪ করা বা কড়া = ১ গণ্ডা।
  • ২০ গণ্ডা = ১ কানি
See also  আনা গন্ডা কড়া ক্রান্তি লেখার চিহ্ন

চট্টগ্রামের কানি

এখানে ৪০ শতকে কানি ও ১২০ শতকে কানি দেখা যায়। ৪০ শতকে কানিকে কাচ্ছা কানি বা ছোট কানি বলে। ১২০ শতকে কানিকে পাক্কা কানি বা সাই কানি বলে।
হিসাব হল- 
  • ৪০ শতক মানে, ৪০ x ৪৩৫.৬= ১৭৪২৪ স্কয়ার ফিট।
  • ২০ গণ্ডা = ১ কানি (৪০ শতকের কানি) = ১৭৪২৪ স্কয়ার ফিট।
  • ১ গণ্ডা = ১৭424/20= ৮৭১.২ স্কয়ার ফিট
  • ৪ কড়া = ১ গণ্ডা = (১ গণ্ডা = ৮৭১.২ স্কয়ার ফিট।
  • ১ কড়া = ৮৭১.২/৪=২১৭.৮ স্কয়ার ফিট।
  • ১ শতক = ২ কড়া।
  • ১ কড়া = ১/২ শতক।

কুমিল্লার কানির হিসাব

এলাকাভেদে আমরা তিন প্রকারের কানি দেখতে পাই। যেমনঃ-
৩০ শতকে,
১২০ শতকে,
১৮০ শতককের কানি ৷

যেভাবে কানির হিসাব বের করবেন

  • ৩০ শতকে কানি হলে ৩০ ✖ ৪৩৫.৬ = ১৩০৬৮ স্কয়ার ফিট।
  • ১২০ শতকের কানি হলে ১২০ ✖ ৪৩৫.৬ = ৫২২৭২ স্কয়ার ফিট।
  • ১৮০ শতকে কানি হলে ১৮০ x ৪৩৫.৬ = ৭৮৪০৮ স্কয়ার ফিট।
  • ৪ কড়া সমান ১ গণ্ডা, ২০ গণ্ডায় ১ কানি এই হিসাব সমান।

নোয়খালির জমির কানি

এখানে জমির শতককে ডিসিম নামে ডাকা হয়। এখানে ১২০ ডিসিমে ১ কানি হিসাবে ধরা হয়। মানে ১২০ ✖ ৪৩৫.৬ = ৫২২৭২ স্কয়ার ফুট।
  • ১ কানি সমান ৫২২৭২ স্কয়ার ফুট
  • ১ গণ্ডা সমান ৫২২৭২ ➗ ২০ =২৬১৩.৬ স্কয়ার ফিট।
  • ১ গণ্ডা সমান ৪ করা বা ২৬১৩.৬ স্কয়ার ফুট
  • ১ করা = ২৬১৩.৬ ➗ 4 = ৬৫৩.৪ স্কয়ার ফিট।
আমরা জানি, এক শতক ৪৩৫.৬ স্কয়ার ফিট, তাহলে এক করা সমান= ৬৫৩.৪ ➗ ৪৩৫.৬ = ১.৫ শতক।

ফেনী ও লক্ষ্মীপুরের কানি

এখানেও এলাকাভেদে ১২০ শতক আবার কোথাও ৪০ শতকে কানি দেখা যায়।
  • ৪ করা সমান এক গণ্ডা
  • ২০ গণ্ডা সমান ১ কানি।

বরিশালের কানি

এখানে একটু সামান্য ভিন্ন হিসাবে কানি হিসাব করা হয়।
  • ২ শতকে এক গণ্ডা
  • ১০ গণ্ডা সমান এক জ্যেষ্ঠে
  • ৮ জ্যেষ্ঠে ১ কানি।
বাংলাদেশের জমির পরিমাপের নিয়ম সম্পর্কে এই পোস্ট করা হয়েছে । বিভিন্ন জেলার বিভিন্ন রকম নিয়ম রয়েছে । আমি এই লেখা গুলো আইনের বিভিন্ন বই থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে । যদি কোন ভুল হয়ে থাকে তাহলে কমেন্ট করে জানাবেন । ধন্যবাদ 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *