মুরগির রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার

রানীক্ষেত রোগের ঔষধের নাম, মুরগির রানীক্ষেত রোগের ওষুধ, মুরগির রানীক্ষেত রোগের প্রতিকার, মুরগির রানীক্ষেত রোগ কেন হয়, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি ধারাবাহিকভাবে দেখাও, গামবোরো রোগের লক্ষণ, রানীক্ষেত রোগের টিকা দেওয়ার নিয়ম, রানীক্ষেত রোগের ঔষধের নাম, মুরগির রানীক্ষেত রোগের ওষুধ, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি, রানীক্ষেত রোগের ভ্যাকসিন, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি ধারাবাহিকভাবে দেখাও, মুরগির রানীক্ষেত রোগ কেন হয়, রানীক্ষেত রোগের টিকার নাম, ব্রয়লার মুরগির রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ, রানীক্ষেত রোগের ঔষধের নাম, রানীক্ষেত ভ্যাকসিন দেয়ার নিয়ম, বিভিন্ন রোগের টিকার নাম, রানীক্ষেত ভ্যাকসিন দেয়ার সময়, রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ, রানীক্ষেত ভ্যাকসিনের দাম কত, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি, রানীক্ষেত রোগের প্রতিকার, রানীক্ষেত রোগের ঔষধের নাম, ব্রয়লার মুরগির রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ, রানীক্ষেত রোগের ভ্যাকসিন, মুরগির রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার, রানীক্ষেত রোগের প্রতিকার, রানীক্ষেত রোগের টিকার নাম, মুরগির রানীক্ষেত রোগের ওষুধ, কবুতরের রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ,
মুরগির রানীক্ষেত রোগ

রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার 

মুরগির সংক্রামক রোগের মধ্যে রাণীক্ষেত সবচেয়ে মারাত্মক । এটি একটি ভাইরাস জনিত
ছোয়াছে রোগ । সময়মত টিকা না দিলে এ রোগ অনেক মুরগি মারা যায় । বছরের যে কোন সময় এ
রোগ হতে পারে । তবে সাধারণত হেমন্তের শেষ থেকে শুরু করে শীতের শেষ পর্যন্ত
(অক্টোবর-ফেব্রুয়ারি) সময় এ রোগ বেশি হতে দেখা যায় । যে কোন বয়সের মুরগিতে এ রোগ
হতে পারে । এ উপমহাদেশে ভারতের রাণীক্ষেত নামক স্থানে এ রোগ প্রথম আবিষ্কৃত হওয়ায়
একে রাণীক্ষেত রোগ বলা হয় । ইংল্যান্ডের নিউক্যাসল নামক স্থানে এ রোগ সর্বপ্রথম
আবিষ্কৃত হওয়ায় সারা বিশ্বে এটি নিউক্যাসল ডিজিজ নামে পরিচিত ।

রানীক্ষেত রোগের ঔষধের নাম, মুরগির রানীক্ষেত রোগের ওষুধ, মুরগির রানীক্ষেত রোগের প্রতিকার, মুরগির রানীক্ষেত রোগ কেন হয়, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি ধারাবাহিকভাবে দেখাও, গামবোরো রোগের লক্ষণ, রানীক্ষেত রোগের টিকা দেওয়ার নিয়ম, রানীক্ষেত রোগের ঔষধের নাম, মুরগির রানীক্ষেত রোগের ওষুধ, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি, রানীক্ষেত রোগের ভ্যাকসিন, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি ধারাবাহিকভাবে দেখাও, মুরগির রানীক্ষেত রোগ কেন হয়, রানীক্ষেত রোগের টিকার নাম, ব্রয়লার মুরগির রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ, রানীক্ষেত রোগের ঔষধের নাম, রানীক্ষেত ভ্যাকসিন দেয়ার নিয়ম, বিভিন্ন রোগের টিকার নাম, রানীক্ষেত ভ্যাকসিন দেয়ার সময়, রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ, রানীক্ষেত ভ্যাকসিনের দাম কত, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি, রানীক্ষেত রোগের প্রতিকার, রানীক্ষেত রোগের ঔষধের নাম, ব্রয়লার মুরগির রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ, রানীক্ষেত রোগের ভ্যাকসিন, মুরগির রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার, রানীক্ষেত রোগের প্রতিকার, রানীক্ষেত রোগের টিকার নাম, মুরগির রানীক্ষেত রোগের ওষুধ, কবুতরের রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ,
রাণীক্ষেত রোগাক্রান্ত মুরগি

রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ

  • এ রোগের জীবাণু শরীরে প্রবেশের এক সপ্তাহের মধ্যে লক্ষণ প্রকাশ পায় ।
  • আক্রান্ত মুরগির শ্বাস-প্রশ্বাস দ্রুত এবং মুখ হাঁ করে নিশ্বাস নেয় । অনেক
    সময় শ্বাস নেয়ার সময় “কক, কক” শব্দ হয় । মুখ দিয়ে লালা পড়ে ।
  • আক্রান্ত মুরগি সাদা চুনের মতো পাতলা মল ত্যাগ করে । মলের রঙ অনেক সময়
    সবুজ,হলুদ বা এ দুই রঙের মিশ্রণও হতে দেখা যায় ।
  • পাখা নিচের দিকে ঝুলে পড়ে,মুরগি খাওয়া দাওয়া ছেড়ে দেয় । মাথা নিচু ও চোখ বন্ধ
    করে ঝিমাতে থাকে । 
  • মাঝে মাঝে আক্রান্ত মুরগির ঘাড় বেঁকে যায় এবং খুড়িয়ে চলে ।
  • ডিমপাড়া মুরগি ডিম দেওয়া বন্ধ হয়ে যায় ।
  • মুরগি দুর্বল হয়ে ঠোঁট ও বুক মাটিতে লাগিয়ে বসে পড়ে । পাতলা মল পেছনের পালকে
    লেগে থাকে ।
  • রোগের লক্ষণ দেখা দেওয়ার দুই একদিনের মধ্যেই মুরগির মৃত্যু ঘটে । দু’একটা
    বেঁচে গেলেও তাঁদের উৎপাদন ক্ষমতা একেবারেই কমে যায় ।

    রানীক্ষেত রোগের ঔষধের নাম, মুরগির রানীক্ষেত রোগের ওষুধ, মুরগির রানীক্ষেত রোগের প্রতিকার, মুরগির রানীক্ষেত রোগ কেন হয়, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি ধারাবাহিকভাবে দেখাও, গামবোরো রোগের লক্ষণ, রানীক্ষেত রোগের টিকা দেওয়ার নিয়ম, রানীক্ষেত রোগের ঔষধের নাম, মুরগির রানীক্ষেত রোগের ওষুধ, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি, রানীক্ষেত রোগের ভ্যাকসিন, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি ধারাবাহিকভাবে দেখাও, মুরগির রানীক্ষেত রোগ কেন হয়, রানীক্ষেত রোগের টিকার নাম, ব্রয়লার মুরগির রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ, রানীক্ষেত রোগের ঔষধের নাম, রানীক্ষেত ভ্যাকসিন দেয়ার নিয়ম, বিভিন্ন রোগের টিকার নাম, রানীক্ষেত ভ্যাকসিন দেয়ার সময়, রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ, রানীক্ষেত ভ্যাকসিনের দাম কত, মুরগির রানীক্ষেত রোগের টিকাদান পদ্ধতি, রানীক্ষেত রোগের প্রতিকার, রানীক্ষেত রোগের ঔষধের নাম, ব্রয়লার মুরগির রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ, রানীক্ষেত রোগের ভ্যাকসিন, মুরগির রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার, রানীক্ষেত রোগের প্রতিকার, রানীক্ষেত রোগের টিকার নাম, মুরগির রানীক্ষেত রোগের ওষুধ, কবুতরের রানীক্ষেত রোগের লক্ষণ,
    রাণীক্ষেত রোগাক্রান্ত ছোট বাচ্চা
    See also  Understanding the hype around sugar-free treats

    রানীক্ষেত রোগের টিকার নাম

    রানীক্ষেত রোগের কোন চিকিৎসা হয় না । নিয়মিত প্রতিষেধক টিকা দান এ রোগের হাত থেকে
    মুরগিকে বাঁচাবার একমাত্র উপায় । বাংলাদেশের সর্বত্র পশুসম্পদ অফিসের মাধ্যমে এ
    টিকা বিতরণ করা হয়ে থাকে । 

    রানীক্ষেত রোগের ভ্যাকসিন

    রানীক্ষেত রোগের ভ্যাকসিন দুই রকমের হয় যথাঃ
    • বি.সি.আর.ডি.ভি
    • আর.ডি.ভি

    ১। বি.সি.আর.ডি.ভি

    ১দিন বয়সের বাচ্চাকে এ টিকা দিতে হয় । এ টিকার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাচ্চার ২মাস
    বয়সকাল পর্যন্ত ।

    টিকা ব্যবহার পদ্ধতি

    শিশির টিকা বীজ ৬ সিসি পরিমাণ পরিশ্রুত পানিতে গুলে ড্রপার দিয়ে প্রতি চোখে ১
    ফোঁটা দিতে হয় । প্রতি ১০০ মাত্রা টিকা বীজ থাকে ।

    ২। আর.ডি.ভি

    দুই মাস বয়সের বেশি সকল মোরগ-মুরগিকে বছরে ২বার এ টিকা দিতে হয় । 

    টিকা ব্যবহার পদ্ধতি

    ভায়েলের বা শিশির টিকা বীজ ১০০ সিসি পরিশ্রুত পানিতে মিশিয়ে রানের মাংসে ১ সিসি
    করে ইনজেকশন হিসেবে এ টিকা দিতে হয় । এ টিকা ৬মাস পর পর অর্থাৎ বছরে ২ বার দিতে
    হয় ।

    রানীক্ষেত রোগের প্রতিকার

    এ রোগের কোন চিকিৎসা হয় না । তবে আক্রান্ত মুরগিকে ০.০১% পটাশিয়াম পারম্যাঙ্গানেট
    মিশানো পানি খাওয়ানো যেতে পারে । সালফাড়ায় জিন ট্যাবলেট বড় মুরগিকে ৪ ভাগ করে
    দিনে ২ বার খাওয়ানো যেতে পারে ।
    রোগ দমনের জন্য স্বাস্থ্যসম্মত পালন ব্যবস্থা খুবই সহায়ক । আক্রান্ত মুরগি আলাদা
    রাখতে হবে এবং কোথাও বিক্রি করা যাবে না । মৃত মুরগি মাটির নিচে পুতে ফেলতে হবে ।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *